বানান হয়ে ওঠা সময়

যখন তুমি কিছুই পারবা না তখন তো তোমাকে মন্ত্রী বানানো ছাড়া উপায় দেখছি না — সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর

101
729 views

গতকাল ৯ আশ্বিন ১৪২৫, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় (২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮) ঢাকায় বাংলা একাডেমীতে অনলাইন সাহিত্য ওয়েব পরস্পর এবং অগ্রদূত প্রকাশনীর উদ্যোগে হয়ে গেল আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭  এবং  বিশেষ সম্মাননা প্রধান মাহফিল

সন্ধ্যা ৬:৩০ টায় আয়োজনের আসল কাণ্ডারী কবি গালিব হাসান সোহেল স্বাগত বক্তব্য দিয়ে শুরু করেন । তুলে ধরেন এই আয়োজনের পিছনের কথা ।  (পুরা আলাপ এখানে ভিডিও লিঙ্কে —https://www.youtube.com/watch?v=tyjRnyU-D5E)

তারপর নাট্যজন নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু আবুল হাসান বিষয়ে স্মৃতিচারণ করেন । বলেন বিশেষ সম্মাননা পাওয়া কবি সাজ্জাদ শরীফ এবং গল্পকার কাজল শাহনেওয়াজের কাজে বাঁকবদলে নিয়ে । তারপর বলেন, আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭ পাওয়া কবি অনুপম মণ্ডলকে নিয়ে ।

মাস্টার হায়াৎ মামুদকে ‘পরস্পর-অগ্রদূত’ আজীবন সম্মাননা দেওয়া হয়েছে । বক্তৃতা পর্বে মামুদ বলেন, ‘আমার ছাত্র যারা তারা বলবেন স্যার ক্লাসে খালি খালি গল্প করতেন ।  পড়াতেন কখন তাতো জানতাম না । আমি সারা জীবন ক্লাসে গল্প করতাম । আমার পড়ানো আর গল্প করা একই ।’ ( এখানে ভিডিও লিঙ্ক —https://www.youtube.com/watch?v=gKdXGm14_SE ) 

কথা সাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক বলেন, ‘এক সময় ঢাকায় আমার মাত্র ৩ জন বন্ধু ছিল । তার একজন হায়াৎ মামুদ । এই বন্ধন ভ্রাতৃ বন্ধন বললেও কম হবে । যত দূরেই থাকি আর কাছেই থাকি । তো আজকে হায়াৎ যে আজীবন সম্মাননা পাচ্ছে তাতে আমি অসম্ভব আনন্দিত, উৎফুল্ল । এবং হায়াত যে কাজগুলো করেছে— বিদেশি সাহিত্যের সঙ্গে আমদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছে, টলস্তয়-দস্তয়ভস্কি অনুবাদ করেছে, এই অসাধারন অনুবাদগুলো আপনারা পড়ে দেখবেন । আর একেবারে সত্যি সত্যি  টাটকা ছানার তৈরি সন্দেশ যেমন মিষ্ট, তেমনি আমাদের এই হায়াৎ মামুদের গদ্যটি মিষ্ট । আমার কাছে মনে হয় এতো মিষ্ট গদ্য, এতো সুস্বাদু গদ্য আমাদের মধ্যে আর কেউ লেখেননি।”  (এখানে ভিডিও লিঙ্কে পুরা ওয়াজ আছে — https://www.youtube.com/watch?v=O1qGzMnRRzQ&feature=youtu.be )

গল্পের বাঁকবদলে বিশেষ অবদানের জন্য কাজল শাহনেওয়াজ এবং কবিতার বাঁকবদলে বিশেষ অবদানের জন্য সাজ্জাদ শরিফকে দেওয়া হয় বিশেষ সম্মাননা

কাজল শাহনেওয়াজ বলেন, ‘আমি ঢাকায় থাকলেও আমি ঢাকায় থাকি না । আমি অনেক কিছু থেকে অনেক দূরে । অনেক কিছু দেখি কিন্তু আমাকে কেউ দেখে না । তো দেখা না দেখার মধ্যে এইভাবে হঠাৎ করে দেখানোর দৌড়ে চলে আসব এইটা আমি ভাবতে পারিনি । তবে চমৎকার । সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি ।’ তারপর উনি লিখে আনা নিজের বয়ান পড়ে শুনান । ( পুরাটা এখানে ভিডিও লিঙ্কে আছে — https://www.youtube.com/watch?v=TIkaw8OBolY ) ।

সাজ্জাদ শরীফ বলেন, ‘অত্যন্ত বিনীত অনুভব করছি । পাশাপাশি কিছু সন্ত্রস্ত অনুভব করছি যে, আমি জানতাম আমি বস্তুটা বাতিল । কিন্তু আরেকটা ছাপ পড়ল । সম্মাননা শুনলেই মনে হয় যে এইবার বিদায়ের পালা । ভাগ এই অঞ্চল থেকে । আনিস স্যার আসেন নি কিন্তু আমি ধরে নিচ্ছি আনিস স্যার আছেন কোথাও । বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী ইতিহাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে যেমন আনিস স্যার থাকেন, আমার জীবনেরও গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে আনিস স্যার ছিলেন ।

আমার মনে পড়ছে, আমি তো খুব অসচ্ছল পরিবারে থেকে বড় । আমার হয়ত অক্ষর জ্ঞানই হওয়ার কথা ছিল না । আমরা যে বাড়ীটিতে থাকতাম সেখানে একজন সাবলেট থাকতেন । উনি যদি আমাদের শিক্ষা না দিতেন— সেই কায়কোবাদ দাদার কথা মনে পড়ছে । আমি যে দুই-চারটা লাইন কবিতা লিখার চেষ্টা করি সেখানে হয়ত তার ভূমিকা আছে ।

আমি কবি হইতে চেয়েছি ছেলেবেলা থেকে । কিন্তু জীবনের সংঘর্ষ অনেক বড় । লিখাও হয়ত কমই হয়েছে । আমার লেখার যে শৈলী সেই ধরণটাও মনে হয় দায়ী । অনেকে বলে আপনি এতো কম কেন লিখেন ? আমার অসমাপ্ত কবিতাও বেশ কয়েকটা আছে । মাথার মধ্যে একটি-দুইটি কবিতার লাইন ঘুরছে আজ প্রায় তিন বছর । আমি লিখতে পারছি না । নিজের ব্যর্থতাই বলব ।

আমি সব সময় ভাবি যে, কবিতা লিখা হচ্ছে অন্ধকারের মধ্যে কথা বলার মত । আমি অন্ধকারে কথা বলছি । নিকষ কালো অন্ধকার । আমি জানি না কেউ আছেন কিনা । আশে পাশে কেউ আমার কথা শুনছেন কিনা । বা হয়ত কেউ একজন যাচ্ছেন আমার পাশ দিয়ে । তিনি আমার ভাষাটা বুঝতে পারছেন কিনা । আমি যে ভাষায় কথা বলছি, উনি হয়ত অন্য ভাষায় কথা বলেন । কিন্তু তারপরও কথা বলে যেতে হয় । কখনো কখনো হয়ত কেউ যান আমার সামনে দিয়ে । যার কাছে আমি বলছি । সেই অনিশ্চয়তার উদ্দেশ্যে কবি কথা বলতে থাকেন ।’ (ভিডিও লিঙ্কে পুরা আলাপ আছে —  https://www.youtube.com/watch?v=Q0zJj4BrvSk)

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতায় সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘এই ধরনের প্রোগ্রামে কথা বলা আমার জন্য কঠিন ।  এর চেয়ে সহজ ছিল আবুল হাসানের কবিতা আবৃতি করা । আবুল হাসান আমাদের বন্ধু ছিলেন ।’

পরে গল্পের ছলে উনি বলেন, ‘শেরে বাংলার কাছে এলাকার একজন অতি দরিদ্র মানুষ গিয়ে বললেন আমি খুব কষ্টে আছি আমার জন্য একটা ব্যবস্থা করেন । আপনি আমাদের নেতা ।

তখন শেরে বাংলা তাকে জিগাসা করলেন, তুমি কি লেখা পড়া জান ? বলে, না ।

কৃষি কাজ জান ? বলে, না ।

কলকারখানায় কাজ দিলে পারবা । বলে, না পারব না । ওখানে তো প্রচুর কাজ ।

রিকশা চালাইতে পারবা ? বলে, ওইটা তো আরো কঠিন ।

তখন শেরে বাংলা বলেন, যখন তুমি কিছুই পারবা না তখন তো তোমাকে মন্ত্রী বানানো ছাড়া উপায় দেখছি না । আমি হইলাম সেই রকম একটি মানুষ ।’ (এই ভিডিও লিঙ্কে পুরা আলাপ আছে  https://www.youtube.com/watch?v=AsZiU0uSRZQ&feature=youtu.be)

 

মন্ত্রী এসময় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক (ইউসিবি) লিমিটেডকে এই কবির নামে নতুন সাহিত্য পুরস্কার শুরুর জন্য ধন্যবাদ জানান। আগামীতে বিশেষ সম্মাননা প্রাপ্তদেরকেও পুরস্কার হিসেবে অর্থ প্রদান করার জন্য কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান।


কবি অনুপম মণ্ডলকে তার কাব্যগ্রন্থ ‘অহম ও অশ্রুমঞ্জরি’র জন্য আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭ দেওয়ার মধ্য দিয়ে প্রোগ্রাম শেষ হয়। পুরস্কার হিসেবে এসময় তাকে একটি ক্রেস্ট ও অর্থমূল্য হিসেবে ১ লাখ ১ হাজার ১০১ টাকা দেওয়া হয়।

সন্ধ্যায় তানজীল ফাতেমা পিয়াল কবি আবুল হাসানের কবিতা আবৃত্তির মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু হয় । অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সারিকা পারভীন সুমা।

পরস্পর‘ ২০১৫ সালে অলনাইলে সাহিত্য পত্রিকা হিসাবে যাত্রা শুরু করে। বাংলা ভাষার অনেক গুরুত্বপূর্ণ লেখকদের লেখা এখানে ছাপা হয়েছে । ফলে অনেকের মনযোগ কেড়েছে এই ওয়েব ।  ২০০৩ সালে আত্মপ্রকাশ করে অগ্রদূত প্রকাশনী।

এ দুই প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত উদ্যোগেই দেওয়া হলো ইউসিবি আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭। এইবার পুরস্কারসহ আজীবন ও বিশেষ সম্মাননা দেয়া হল দেশের চারজন সাহিত্যিককে।

[প্রায় পুরা প্রোগ্রামের ৪৩ মিনিটের ভিডিও লিঙ্ক এখানে আছে https://www.youtube.com/watch?v=jIqq3lt061g ]

 


You Might Be Interested In

LEAVE A COMMENT